ব্লগ

ক্রিকেট হাইলাইটস, ১০ জুলাই: ইংল্যান্ড বনাম ভারত (৩য় টি২০)

ইংল্যান্ড বনাম ভারত

ইংল্যান্ড বনাম ভারত (৩য় টি২০) – হাইলাইটস

রবিবার নটিংহ্যামের ট্রেন্টব্রিজে সিরিজের শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ভারত ও ইংল্যান্ড। তবে দুর্দান্তও ব্যাটিং ও বোলিং এর কারনে শেষ ম্যাচে হোয়াইটওয়াশ হতে হল না ইংল্যান্ডের।

ইংল্যান্ডের নতুন ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক জস বাটলারের অধীনে শুরুটা মোটেও সুখকর হয়নি। প্রথম দুটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচেই হেরেছিল ইংলিশরা। প্রথটিতে ৫০ এবং দ্বিতীয়টিতে তারা হেরেছে ৪৯ রানে। শেষ ম্যাচে দাঁড়িয়েছিল হোয়াইটওয়াশের সামনে।

তবে, ঘরের মাঠে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার লজ্জা এড়াতে সক্ষম হয়েছে বাটলারের দল। প্রথমে ব্যাট করে ২১৫ রান সংগ্রহ করার পর ভারতকে হারিয়েছে তারা ১৭ রানের ব্যবধানে। সুর্যকুমার যাদবের অসাধারণ সেঞ্চুরির পরও হারতে হলো ভারতকে। এই জয়ে বাটলারের স্বস্তি যেমন ফিরেছে, তেমনি হোয়াইটওয়াশ হওয়াও এড়ালো ইংলিশরা।

নটিংহ্যামের ট্রেন্টব্রিজে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় ইংল্যান্ড। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে টস জিতে যে আগে ব্যাটিংও করা যায়, সেটি হয়তো ভুলেই গিয়েছিল ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল। কেননা গত ছয় বছর ধরে যতবারই টস জিতেছে তারা, প্রতিবার নিয়েছে আগে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত। অবশেষে সে ধারাবাহিকতায় ইতি টেনেছেন জস বাটলার। ৬ বছর পর টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ইংরেজ অধিনায়ক বাটলার।

গত ৬ বছরে ইংলিশরা যতবারই টস জিতেছিল, ততবারই প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। রান তাড়া করে জয় পেতেই যেন আনন্দ ছিল বেশি তাদের।

সিরিজের আগের দুই ম্যাচ হেরে অবশেষে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন ইংলিশরা এবং তার সুফলও ঘরে তুলে নেন। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৭ উইকেট হারিয়ে ২১৫ রান সংগ্রহ করে বাটলারের দল।

মূলত ডেভিড মালানের ঝড়ো ব্যাটিংয়ের ওপর ভর করেই বড় সংগ্রহ গড়তে সক্ষম হয় তারা। তার সঙ্গে যোগ দিয়েছিলেন লিয়াম লিভিংস্টোনও। তিনিও ব্যাট হাতে ঝড় তুলেছিলেন। ৩৯ বলে ৭৭ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন মালান। ৬টি বাউন্ডারির সঙ্গে ৫টি ছক্কার মার ছিল তার ব্যাটে। লিভিংস্টোন ২৯ বলে ৪২ রানে অপরাজিত ছিলেন। ৪টি ছক্কার মার ছিল তার ইনিংসে।

এছাড়া ওপেনার জেসন রয় ২৭, হ্যারি ব্রুক ১৯, বাটলার ১৮ রান করেন। ফিলিপ সল্ট করেন ৬ বলে ৮ রান। মঈন আলী গোল্ডেন ডাক নিয়ে মাঠ ছাড়েন। ক্রিস জর্ডান ৩ বলে ১১ রান করেন এবং ১টি ছয় ও ১টি চার মারেন।

ভারতের হয়ে ২টি করে উইকেট নেন হার্শাল প্যাটেল এবং রবি বিষ্ণোয়। ১টি করে উইকেট নেন আভেশ খান এবং উমরান মালিক।

জবাব দিতে নেমে সুর্যকুমার যাদবের দুর্দান্ত সেঞ্চুরির পরও ৯ উইকেটে ১৯৮ রানে থেমে যায় ভারত। ৫৫ বলে ১১৭ রানের টর্নেডো গতির ইনিংস খেলেন যাদব। ১৪টি বাউন্ডারির সঙ্গে ৬টি ছক্কার মার মারেন তিনি। সুর্যকুমার ছাড়া ভারতের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ইনিংস হলো শ্রেয়াস আয়ারের, ২৮ রান। ১১ রান করে করেন রোহিত শর্মা এবং বিরাট কোহলি। এছাড়া ঋষভ পান্ত করেন মাত্র ১ রান। দিনেশ কার্তিক করেন ৬ রান। রবীন্দ্র জাদেজা করেন ৭ রান। হার্শাল প্যাটেল করেন ৫ রান। আভেশ খান করেন ১ রান। রবি বিষ্ণোয় করেন ২ রান। 

ইংল্যান্ডের হয়ে রিস টপলি নেন ৩ উইকেট। ২টি করে উইকেট নেন ডেভিড উইলি এবং ক্রিস জর্ডান। ১টি করে উইকেট নেন রিচার্ড গ্লেসন এবং মইন আলি।

তবে ম্যাচ জিতলেও সিরিজ খোয়াতে হয়েছে ইংল্যান্ডকে। প্রথম দুই ম্যাচ জয়ের কারণে ২-১ ব্যবধানে সিরিজের ট্রফি হাতে তুলে নিয়েছে রোহিত শর্মার দল।


ইংল্যান্ড বনাম ভারত এর স্কোরবোর্ড

ভারত – ১৯৮/৯ (২০.০)

ইংল্যান্ড২১৫/৭ (২০.০)

ফলাফল – ইংল্যান্ড ১৭ রানে জয়ী

প্লেয়ার অফ দ্য ম্যাচ – রিস টপলি 


ইংল্যান্ড বনাম ভারত


ইংল্যান্ড বনাম ভারত ম্যাচের একাদশ

ইংল্যান্ড  জস বাটলার (অধিনায়ক এবং উইকেটরক্ষক), ডেভিড মালান, জেসন রয়, লিয়াম লিভিংস্টোন, ফিলিপ সল্ট, মঈন আলী, হ্যারি ব্রুক, ক্রিস জর্ডান, ডেভিড উইলি, রিচার্ড গ্লিসন, রিস টপলি
ভারত রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), ঋষভ পান্ত (উইকেটরক্ষক), সূর্যকুমার যাদব, বিরাট কোহলি, দিনেশ কার্তিক, শ্রেয়াস আইয়ার, হার্শাল প্যাটেল, রবীন্দ্র জাদেজা, আভেশ খান, রবি বিষ্ণোয়, উমরান মালিক

আরো ব্লগ