Skip to main content

আইপিএল ২০২২: আইপিএল এর ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর একজন করে খেলোয়াড় যারা দলকে সবচেয়ে বেশি হতাশ করেছেন

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) এর ১৫তম আসর আগামী ২৬ মার্চ থেকে শুরু হতে চলেছে। যদিও এই সংস্করণে দুটি নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজি যুক্ত হয়েছে – গুজরাট টাইটানস এবং লক্ষ্ণৌ সুপার জায়ান্টস। এমএস ধোনি, বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা এবং রবীন্দ্র জাদেজার মতো খেলোয়াড়রা টুর্নামেন্টের জনপ্রিয়তায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে।

আগের ১৪টি মৌসুমে, আইপিএল দলগুলোর মধ্যে পরিসংখ্যান অনেকটা কাছাকাছি ছিল। মুম্বাই ইন্ডিয়ানস এবং চেন্নাই সুপার কিংস যথাক্রমে পাঁচ এবং চারটি শিরোপা জিতেছে। অন্যদিকে দিল্লি ক্যাপিটালস, পাঞ্জাব কিংস এবং রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু এখন পর্যন্ত আইপিএল জয়ের স্বাদ পায়নি।

ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো খেলোয়াড়দের জন্য যে বিনিয়োগ করে এবং খেলয়াড়রা যে পারফর্ম করে তার উপর দলগুলোর সাফল্যের অনেকাংশ নির্ভর করে। এখানে প্রতিটি ফ্র্যাঞ্চাইজি থেকে একজন খেলোয়াড়কে বেছে নেওয়া হয়েছে যিনি একাধিক মৌসুমে দলের জন্য প্রদত্ত পারফর্ম করতে পারেননি।

পাঞ্জাব কিংস – গ্লেন ম্যাক্সওয়েল 

২০১৪ সালে তৎকালীন কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবকে প্রথমবারের মত আইপিএল এর ফাইনালে নিয়ে যাওয়ার পর গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে ফ্র্যাঞ্চাইজিটির দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগ হিসাবে দেখা হয়েছিল। কিন্তু পরের তিনটি মৌসুমে, তিনি পাঞ্জাবের হয়ে ৩৬টি ম্যাচে মাত্র ৬৩৪ রান করেন। যেখানে তিনি শুধুমাত্র ২০১৪ আইপিএল থেকেই ৫৫২ রানের মত তুলেছিলেন।

ম্যাক্সওয়েলকে দুই বছরের জন্য ছেড়ে দেওয়ার পর, আইপিএল ২০২০ নিলামে পাঞ্জাব আবার তার জন্য জোরালোভাবে বিড করে, কিন্তু এই অস্ট্রেলিয়ানের জন্য তা একটি দুঃস্বপ্নের মৌসুম হিসেবে অতিবাহিত হয়। কেননা ১৩ ম্যাচে মাত্র ১০৮ রান সংগ্রহ করে এই মারকুটে অলরাউন্ডার সেই আসরে পারফর্ম করতে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়। ম্যাক্সওয়েল এখনও আইপিএলে একটি বড় নাম, কিন্তু পাঞ্জাব কয়েক বছর ধরে তার পারফরম্যান্সে বেশ হতাশ হয়েছে। 

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু – নবদীপ সাইনি

২০১৮ সালের আইপিএলে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু (আরসিবি) দিল্লি-ভিত্তিক পেসার নবদীপ সাইনিকে ৩ কোটি রুপিতে দলে ভিড়িয়েছিল। সাইনি তার দুর্দান্ত গতির সাথে আরসিবি-এর ডেথ-বোলিংয়ে সমস্যার সমাধান করবে এবং বোলিং আক্রমণকে আরও সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে বলে আশা করা হয়েছিল।

কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত, ২৮টি ম্যাচে ১৭ উইকেট একজন বোলারের কাছ থেকে পর্যাপ্ত বলে মনে করা হয় না, এবং তার ইকোনমিও ৮.৪৭ এর উপরের দিকে ছিল। তাদের বিনিয়োগ পুরোপুরি কার্যকর না হওয়ার কারণে আরসিবি তাকে ২০২২ আইপিএল-এর জন্য ধরে রাখেনি।

সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ – বিজয় শঙ্কর

আইপিএল ২০১৮ এ,, বিজয় শঙ্কর ১৪৩.২৪ স্ট্রাইক রেট নিয়ে ব্যাট করেছিলেন। ফলে সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ মিডল-অর্ডার কগ হিসাবে অলরাউন্ডারে বিনিয়োগ করতে তাকে বেছে নিয়েছিল। তবে, সেই দিক থেকে, আইপিএল রিটার্নে শঙ্করের পারফর্মেন্সে ঘাটতি দেখা যায় এবং তিনি ব্যাট বা বল উভয়েই মুগ্ধ করতে ব্যর্থ হয়।

২০১৯ এবং ২০২১ এর মধ্যে তিন মৌসুমে, শঙ্কর একটি মাত্র হাফ-সেঞ্চুরি করেছিলেন এবং ২৯টি ম্যাচে আটটি উইকেট তুলেছিলেন। এই সময়ের মধ্যে সানরাইজার্সের একটি অনভিজ্ঞ ব্যাটিং লাইন আপ থাকা সত্ত্বেও, শঙ্কর দলকে একত্রে ধরে রাখতে বা দলে নিজের নাম প্রতিষ্ঠিত করতে ব্যর্থ হন।

চেন্নাই সুপার কিংস – কেদার যাদব

সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ভারতের পক্ষে শক্তিশালী পারফরম্যান্সের পর কেদার যাদবের চাহিদা বেড়েছে, বিশেষ করে ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হোম সিরিজে তার ম্যাচ জয়ী সেঞ্চুরি তাকে এক অন্য উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিল। যদিও তার প্রাক্তন দল আরসিবি ২০১৭ সালে বিশেষভাবে ভাল কিছু করতে পারেনি, মিডল অর্ডারে যাদবের ১৪৩.৫৪ স্ট্রাইক রেট চেন্নাই সুপার কিংসকে মুগ্ধ করেছিল, যার ফলে তারা মহারাষ্ট্রের এই খেলোয়াড়কে দলে ভেড়ানোর জন্য বড় বিড করেছিল।

তবে মৌসুমের প্রথম খেলায় চোট পাওয়ায় যাদবের আইপিএল ২০১৮ চোখের পলকে শেষ হয়ে গিয়েছিল। কারণ চোটের কারণে পুরো মৌসুমের জন্য দল থেকে ছিটকে পড়েন তিনি। এরপর সিএসকে এর হয়ে আরও দুটি সিজন খেললেও আশানুরূপ পারফর্ম করতে ব্যর্থ হন তিনি এবং শেষ পর্যন্ত তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। সিএসকে-এর ধৈর্য এবং বিশ্বাস থাকা সত্ত্বেও, যাদব একটি দুর্বল বিনিয়োগে পরিণত হয়েছিল।

দিল্লি ক্যাপিটালস – শাহবাজ নাদিম

যদিও শাহবাজ নাদিম আইপিএল-এর একজন পুরোনো খেলোয়াড়, কিন্তু তার পরিসংখ্যান তাকে খুব একটা ভালো অবস্থান দিতে পারেনি। ৩২ বছর বয়সী এই খেলোয়াড় ৭২ টি আইপিএল ম্যাচে মাত্র ৪৮ উইকেট শিকার করেছেন, যদিও তার ৭.৫৬ এর একটি সহজ ইকোনমি রেট ছিল।

বাঁহাতি এই স্পিনার এর আগে দিল্লি ডেয়ারডেভিলস এর হয়ে খেলেছেন। ২০১১ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে, ৬১টি খেলায় তিনি ৪০টি উইকেট নিয়েছিলেন। দিল্লি ছিল ২০১৮ সাল পর্যন্ত সবচেয়ে বাজে পারফরম্যান্সকারী ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলির মধ্যে একটি। তবে নাদিমের কয়েক বছরের অভিজ্ঞতা থাকা সত্ত্বেও তিনি দলে তেমন ভালো কোন ভূমিকা রাখেননি।

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স – ধাওয়াল কুলকার্নি

প্রায় ১০০টি আইপিএল ম্যাচ খেলেও, ধাওয়াল কুলকার্নি কোনও আইপিএল দলের জন্য ফ্রন্টলাইন পেসার হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারেননি। তবে গুজরাট লায়ন্সের হয়ে ২০১৬ সালে একটি ভাল মৌসুম ব্যতীত কুলকার্নি কখনও কোনও দলের হয়ে পুরো মৌসুম খেলেননি। তিনি এখন পর্যন্ত আইপিএল এ ৯২টি ম্যাচ খেলে ৮৬টি উইকেট শিকার করেছেন।

কুলকার্নি ২০২০ সালে ফিরে আসার আগে ২০০৮ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত মুম্বাই ইন্ডিয়ানস (এমআই) এর হয়ে ছয়টি মৌসুম খেলেছিল। গত দুই মৌসুমে, তিনি মাত্র একটি ম্যাচ খেলেছিল এবং উভয়বারই তিনি উইকেটহীন ছিলেন। এমআই-এর ধারাবাহিক সাফল্য কয়েক বছর ধরে কুলকার্নির পারফরম্যান্সকে ছায়ায় ফেলে দিয়েছে।

কলকাতা নাইট রাইডার্স – কুলদীপ যাদব

গত কয়েক বছর ধরে কলকাতা নাইট রাইডার্সের মূল শক্তিই তাদের স্পিন আক্রমণের উপর নির্ভর করছে যেখানে পীযূষ চাওলা, সুনীল নারাইন, প্রমুখদের সাথে সম্প্রতি বরুণ চক্রবর্তী যুক্ত হয়েছিলেন। প্রাক্তন অধিনায়ক গৌতম গম্ভীরের ধাক্কায়, কুলদীপ যাদব টুর্নামেন্টে কিছু ভাল পারফরম্যান্স দেখান।

২০১৮ সালের একটি ভালো মৌসুমের পর কুলদীপের গতিপথ বাধাগ্রস্থ হয়। তিনি ২০১৯ এবং ২০২০ সালে তার পরবর্তী ১৪টি আইপিএল ম্যাচ থেকে মাত্র পাঁচটি উইকেট নিয়েছিলেন এবং বিরোধী ব্যাটারদের খুব কমই দমিয়ে রাখতে পেরেছিলেন। কুলদীপ পুরো ২০২১ মৌসুম বেঞ্চে কাটিয়েছেন এবং আশা করছেন যে এখন নতুন দল- দিল্লি ক্যাপিটালস তার ভাগ্যের পরিবর্তন নিয়ে আসবে।

রাজস্থান রয়্যালস – জয়দেব উনাদকাট

জয়দেব উনাদকাটের ৮৫টি আইপিএল উইকেটের মধ্যে, ২৪টি উইকেট ২০১৭ মৌসুমে রাইজিং পুনে সুপারজায়ান্টের হয়ে খেলাকালীন সময়ে এসেছে। দুর্ভাগ্যবশত রাজস্থান রয়্যালসের (আরআর) জন্য, বাঁহাতি এই পেসার ২০১৮ থেকে ২০২১ সালের চার বছরে মধ্যে সেই প্রচেষ্টার কাছাকাছি যেতে ব্যর্থ হয়, যদিও আরআর উনাদকাটের পরিষেবার জন্য বড় অর্থ প্রদান করেছিল।

তিনি ২০১৮ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে অনেক বেশি রান দিয়েছেন কেননা তার ইকোনমি রেট প্রতি ওভারে ১০ রানের কাছাকাছি ছিল। তিনি আইপিএল ২০২১-এ বেঞ্চে সময় কাটিয়েছেন এবং ২০২২ সালে আরও ভাল প্রদর্শনের আশা করবেন।

আরো আজকের ট্রেন্ডিং

আইপিএল ২০২৪ অধিনায়কদের তালিকা| ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের অধিনায়ক এবং কোচ

আইপিএল ২০২৪, ১৭ তম সংস্করণ, ২২ মার্চ ২০২৪ এ শুরু হয়৷ এটি ৭ এপ্রিল ২০২৪ পর্যন্ত চলবে৷ প্রাথমিক ২-সপ্তাহের সেশনে মোট ২১টি অ্যাকশন-প্যাকড ম্যাচ খেলা হবে ৷ ১০টি ভিন্ন শহরে...

বিলিয়ন-ডলার লীগ: ক্রিকেটের অর্থনৈতিক ল্যান্ডস্কেপ গঠনে আইপিএল-এর ভূমিকা!

বিলিয়ন-ডলার লীগ: ক্রিকেটের অর্থনৈতিক ল্যান্ডস্কেপ গঠনে আইপিএল-এর ভূমিকা! ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) শুধুমাত্র তার রোমাঞ্চকর ম্যাচের জন্যই নয় বরং এর অতুলনীয় অর্থনৈতিক প্রভাবের জন্যও ক্রিকেট বিশ্বে সাফল্যের আলোকবর্তিকা হিসেবে দাঁড়িয়ে...

আইপিএল ২০২৪ এর পার্পল ক্যাপধারী: লিডিং উইকেট-টেকার কীভাবে হিট নেয়

আইপিএল ২০২৪ আর মাত্র কয়েক সপ্তাহ দূরে, এবং মরসুমের সবচেয়ে উত্তেজনাপূর্ণ অংশগুলির মধ্যে একটি হল শীর্ষস্থানীয় উইকেট শিকারী হিসাবে কে পার্পল ক্যাপ জিতবে। এই সম্মানজনক স্বীকৃতি শুধু বোলারদের দক্ষতাই তুলে...

উদীয়মান তারকা: তরুণ প্রতিভা আইপিএল ২০২৪-এ প্রভাব ফেলছে

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) হল এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে তরুণ প্রতিভা ক্রিকেটের দ্রুত গতির খেলায় উজ্জ্বল হয়। আইপিএল ২০২৪ ব্যতিক্রম নয় এবং নতুন ক্রিকেটাররা বড় মঞ্চে তাদের দক্ষতা প্রদর্শন করেছে।...