ব্লগ

ক্রিকেট হাইলাইটস, ১৩ জুলাই: ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম বাংলাদেশ (২য় ওডিআই)

ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম বাংলাদেশ

ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম বাংলাদেশ এর ম্যাচ হাইলাইটস

দাপুটে পারফরম্যান্স দেখিয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ নিজেদের করে নিলো সফরকারী বাংলাদেশ। গায়ানায় সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ১৭৬ বল হাতে রেখে ৯ উইকেটের বিশাল জয় তুলে নিয়েছে টাইগাররা।

এ নিয়ে ওয়ানডে ফরম্যাটে শেষ পাঁচ সিরিজের সবকয়টি জিতলো বাংলাদেশ। এর আগে ২০১৫ সালে টানা পাঁচ সিরিজ জেতার কীর্তি দেখিয়েছিল টাইগাররা। ২০১৪-১৫ মৌসুমে জিতেছিল টানা ছয় সিরিজ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচেও টস জিতলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। প্রথম ম্যাচের মতো ২য় ম্যাচে আগে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল।

ফিল্ডিংয়ে নেমে মোসাদ্দেকের হাতেই তুলে দেওয়া হয় প্রথম ওভারের দায়িত্ব। তবে দুই ওভারের সংক্ষিপ্ত স্পেলে তেমন কিছু করতে পারেননি এ ডানহাতি অফস্পিনার। অপরপ্রান্তে মোস্তাফিজুর রহমানও উইকেটের দেখা পাননি।

আগের ম্যাচের ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে উদ্বোধনী জুটিতে রয়েসয়ে খেলছিলেন মায়ার্স ও হোপ। কিন্তু পঞ্চম ওভারে মেহেদি মিরাজ আক্রমণে আসতেই তেড়েফুঁড়ে মারতে যান হোপ। কিন্তু ব্যাটে-বলে করতে পারেননি।

মিরাজের ঝুলিয়ে দেওয়া আর্ম বলে এগিয়ে মারতে গিয়েছিলেন হোপ। বল তার ব্যাটের বাইরের কানায় লেগে চলে যায় উইকেটের পেছনে। কিন্তু সেটি গ্লাভসবন্দী করতে পারেননি সোহান। ফলে হাতছাড়া হয় প্রথম সুযোগ।

একই বলে উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়া হোপকে স্টাম্পিং করতে পারতেন সোহান। কিন্তু বলের বদলে তার হাত লেগেই ভেঙে যায় স্টাম্প। ফলে একই বলে দুই আউট থেকে বেঁচে যান হোপ।

ইনিংসের অষ্টম ওভারে আক্রমণে এসেই হোপকে সাজঘরে প্রায় ফেরত পাঠিয়ে দিয়েছিলেন বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদ। তার ওভারের প্রথম পাঁচ বলে রান নিতে পারেননি হোপ। শেষ বলটি হালকা ঝুলিয়ে অফস্টাম্পের ওপর করেন নাসুম।

রক্ষণাত্মক ভঙ্গিতে খেলতে গিয়েও ব্যাটে লাগাতে পারেননি হোপ, বল চলে যায় সোহানের গ্লাভসে। জোরালো আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। তবে তাৎক্ষণিকভাবে রিভিউ নিয়ে নিজের উইকেট বাঁচান হোপ। প্রথম পাওয়ার প্লে ১০ ওভারে মাত্র ২৬ রান করতে সক্ষম হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

প্রথম স্পেলে দুই ওভার করার পর ১১তম ওভারে ফের আক্রমণে আনা হয় মোসাদ্দেককে। তার দারুণ এক অফস্পিনেই সরাসরি বোল্ড হন মায়ার্স। টেস্ট ও টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশকে ভোগানো মায়ার্স ৩৬ বলে ১৭ রান করে আউট হন।

মায়ার্সের পর ব্রুকসকে বেশিক্ষণ টিকতে দেননি নাসুম। নিজের প্রথম তিন ওভারে দুইটি মেইডেন করা নাসুম চতুর্থ ওভারের তৃতীয় বলে হজম করেন বাউন্ডারি। ঘুরে দাঁড়াতে মাত্র এক বল লাগে তার। সেই ওভারের পঞ্চম বলেই নাসুমের আর্মারের জবাব খুঁজে পাননি ব্রুকস।

এরপর ব্যক্তিগত ষষ্ঠ ও ইনিংসের ১৭তম ওভারেই দেখান জোড়া ভেলকি। ওভারের চতুর্থ বলে হাঁটু গেড়ে সুইপ করেছিলেন শুরু থেকে রক্ষণাত্মক খেলতে থাকা হোপ। কিন্তু গতির তারতম্যের কারণে বল লাগে হোপের ব্যাটের ওপরের কানায়।

আকাশে উঠে যাওয়া বলটি শর্ট মিড উইকেট থেকে খানিক পেছনে দৌড়ে দারুণভাবে তালুবন্দী করেন মোসাদ্দেক। এক বল পর সাজঘরের পথ ধরেন পুরান। রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে ব্যাটের ভেতরের কানায় লেগে বোল্ড হন ক্যারিবীয় অধিনায়ক।

সেই উইকেট পতনের মিছিল আর থামেনি স্বাগতিকদের। ২৬তম ওভারে এসে ৬৯ রান তুলতেই তারা হারিয়েছে পঞ্চম উইকেট। এবার আঘাত শরিফুল ইসলামের। নিজের দ্বিতীয় ওভারে এসেই রভম্যান পাওয়েলকে তুলে নেন বাঁহাতি এই পেসার।

শরিফুলের স্টাম্পে করা ব্যাক অফ দ্য লেন্থ ডেলিভারি ফ্লিক করতে গিয়ে আকাশে বল ভাসিয়ে দেন পাওয়েল (১৩), শর্ট মিডউইকেটে সহজ ক্যাচ নেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

পরের ওভারে এসে টানা দুই বলে দুই উইকেট তুলে নেন মেহেদি হাসান মিরাজ। ব্রেন্ডন কিং (১১) এবং আকিল হোসেন (২)।

এরপর লেজটা ছেঁটে দিতে সময় লাগতো না। ৩১তম ওভারে আবারও জোড়া উইকেট শিকার করেন মিরাজ। ৮৬ রানেই ৯ উইকেট হারিয়ে একশর আগে গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় পড়ে ক্যারিবীয়রা।

কিন্তু কেমো পল দারুণ খেলে একশ পার করে দেন স্বাগতিকদের। দশম উইকেট গুদাকেশ মোতির সঙ্গে ২৬ বলে ২২ রানের জুটি গড়েন এই লোয়ার অর্ডার। শেষ পর্যন্ত মিরাজ এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন মোতিকে (৬)। পল ২৪ বলে ২৫ রানে অপরাজিত থাকেন। এবং তাদের দলীয় টোটাল ছিল ১০ উইকেটে ১০৮ রান। 

মিরাজই ছিলেন দলের সফলতম বোলার। ৮ ওভারে ২৯ রানে ৪ উইকেট শিকার করেন তিনি। ১০ ওভারে মাত্র ১৯ রান দিয়ে ৩টি উইকেট নেন দ্বিতীয় ওয়ানডে খেলতে নামা নাসুম। শরিফুল আর মোসাদ্দেক নেন একটি করে উইকেট। 

বোলাররাই অর্ধেক কাজ সেরে রেখেছিলেন। বাংলাদেশের সামনে লক্ষ্য ছিল মাত্র ১০৯ রানের। তামিম ইকবালের সঙ্গে লিটন দাসের বদলে ওপেনিংয়ে নামেন আরেক বাঁহাতি নাজমুল হোসেন শান্ত। দুই ওপেনারকে শুরুর দিকে কোনো বিপদে ফেলতে পারেননি ক্যারিবীয় বোলাররা। বেশ দেখেশুনে খেলছিলেন তামিম-শান্ত। জুটিতে ৪৮ রান আসে তাদের। 

কিন্তু দারুণ খেলতে খেলতে উইকেট বিলিয়ে দেওয়ার অভ্যাস থেকে বের হতে পারেননি শান্ত। ইনিংসের ১৩তম ওভারে মোতিকে কাউ কর্নার দিয়ে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে ক্যাচ হন এই বাঁহাতি। ৩৬ বলে ২ বাউন্ডারিতে শান্ত করেন ২০ রান।

তবে এরপর আর ক্যারিবীয়দের কোনো সুযোগ দেননি তামিম-লিটন। দ্বিতীয় উইকেটে ৫১ বলে ৬৪ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছেড়েছেন তারা।

তামিম ক্যারিয়ারের ৫৩তম হাফসেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন বাউন্ডারি হাঁকিয়ে। তখন দলের জয়ের জন্য দরকার ছিল মাত্র ১ রান। ৬২ বলে ৭ বাউন্ডারিতে ৫০ রানে অপরাজিত থাকেন তামিম। ২৭ বলে ৬ চারে ঝড়ো ৩২ করেন লিটন।


ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম বাংলাদেশ এর স্কোরবোর্ড

ওয়েস্ট ইন্ডিজ – ১০৮/১০ (৩৫.০)

বাংলাদেশ – ১১২/১ (২০.৪)

ফলাফল – বাংলাদেশ ৯ উইকেটে জয়ী

প্লেয়ার অফ দ্য ম্যাচ – নাসুম  আহমেদ


ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম বাংলাদেশ


ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম বাংলাদেশ ম্যাচের একাদশ

ওয়েস্ট ইন্ডিজ নিকোলাস পুরান (অধিনায়ক), শাই হোপ (উইকেট রক্ষক), কাইল মায়ার্স, শামারহ ব্রুকস, ব্র্যান্ডন কিং, রোভম্যান পাওয়েল, রোমারিও শেফার্ড, কিমো পল, আকিল হোসেন, আলজারি জোসেফ এবং গুদকেশ মতি।
বাংলাদেশ তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), নুরুল হাসান (উইকেট রক্ষক), লিটন দাস, মাহমুদউল্লাহ, নাজমুল হোসেন শান্ত, আফিফ হোসেন, মোসাদ্দেক হোসেন, নাসুম আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান, মেহেদী হাসান এবং শরিফুল ইসলাম।

আরো ব্লগ